বুধবার, ৮ই ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৬শে মাঘ ১৪২৯


ঢাকায় বিএনপির নামে স্লোগান দিয়ে বোমাবাজি হচ্ছে : মির্জা আব্বাস


প্রকাশিত:
১ ডিসেম্বর ২০২২ ১৫:৩৭

আপডেট:
৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩ ১৬:৫৫

ছবি সংগৃহিত

বিএনপির নামে স্লোগান দিয়ে রাজধানীতে এখন বোমাবাজি হচ্ছে বলে দাবি করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস।

বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) দুপুরে নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা বিভাগের গণসমাবেশ সফলের লক্ষ্যে গঠিত ব্যবস্থাপনা উপকমিটির সভা শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

সরকারের মধ্যে একটা গ্রুপ বিএনপির সমাবেশকে কেন্দ্র করে অপপ্রচার চালাচ্ছে দাবি করে মির্জা আব্বাস বলেন, তাদের লক্ষ্য যেকোনোভাবে বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করাতে হবে। এমনকি বোমা ফাটিয়ে হলেও বিএনপির নেতাকর্মীদের গ্রেপ্তার করাতে হবে।

তিনি বলেন, আমরা এখন দেখছি ঢাকা শহরজুড়ে বোমাবাজি হচ্ছে। বিএনপির নামে স্লোগান দিয়ে বোমাবাজি হচ্ছে। একটা জিনিস পরিষ্কার, আমরা শান্তিপূর্ণ সমাবেশ করতে চাই। শান্তিপূর্ণ সমাবেশে আমরা কোনো অশান্তি করবো না। এটা একটা পাগলও বুঝবে আমরা কেন অশান্তি করতে যাবো। সরকারের মধ্যে একটা আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে, কেন হয়েছে জানি না। আমরা সংঘর্ষ চাই না। আক্রমণাত্মক কিছু নয়। এটা হলো আমাদের বিভাগীয় গণসমাবেশ।

বিরোধী দল দমনে একটা উৎসব চলছে মন্তব্য করে মির্জা আব্বাস বলেন, এই উৎসবকে নিয়ে আমরা ভীত নই। এটা আমাদের সমাবেশের অংশ হিসেবে নিয়েছি।

বিএনপির ঢাকা বিভাগীয় সমাবেশ নিয়ে সরকার ধুম্রজাল সৃষ্টি করে নেতাকর্মীদের বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে অভিযোগ করে মির্জা আব্বাস বলেছেন, ১০ ডিসেম্বরের সমাবেশ ঘিরে আমাদের সর্বাত্মক প্রস্তুতি চলছে। ঢাকা বিভাগজুড়ে নেতাকর্মীরা সভা করছেন। ঢাকার নয়াপল্টনে এবং গুলশানে প্রস্তুতি সভা হচ্ছে। পল্টনেই আমরা গণসমাবেশ করবো। বাইরে থেকে লোকজন আসবে। এজন্য যা করা দরকার আমরা সব করবো।

ইদানিং কোর্টে হাজিরা দিতে গেলে বিএনপির নেতাকর্মীদের গণগ্রেপ্তার করা হচ্ছে উল্লেখ করে বিএনপির এই নেতা বলেন, এসব অত্যন্ত পূর্বপরিকল্পিত।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এবং মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে বিএনপি সমাবেশের অনুমতি চেয়েছে সরকারের এমন দাবি প্রসঙ্গে মির্জা আব্বাস বলেন, এটা তারা মিথ্যা বলছে। আমরা শুধু নয়াপল্টনের জন্য লিখিতভাবে জানিয়েছি। গত ১৩ এবং ২০ তারিখে আমরা চিঠি দিয়েছি। মুখে মুখে তো অনেক কথা বলা যায়। আমরা নয়াপল্টনে গতকালও সমাবেশ করেছি। এর আগে শতাধিক সমাবেশ হয়েছে। এমন কী অসুবিধা হবে যে ১০ ডিসেম্বর সমাবেশ নয়াপল্টনে করা যাবে না। আমাদের নেতাকর্মীদের বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। তবে কেউ বিভ্রান্ত হবেন না। সময়ই কথা বলবে।

মির্জা আব্বাস বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বাধা দেওয়া হবে না। কিন্তু আমরা বিপরীত চিত্র দেখছি। বিরোধী দল দমনের উৎসব চলছে। রাজশাহীতে বাধা দিয়েছে। ব্যানার ও প্যান্ডেল ছিঁড়ে ফেলেছে। ঢাকা শহরে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে।

ফাইনালি নয়াপল্টনে অনুমতি না দেওয়া হলে কি হবে? এমন প্রশ্নের জবাবে মির্জা আব্বাস বলেন, ফাইনাল দেরি আছে। সময়ই বলে দেবে।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল নোমান বলেন, ১০ ডিসেম্বরের গণসমাবেশ সফল করার জন্য কার্যক্রম গ্রহণ করেছি। বিএনপি ফ্যাসিস্ট সরকারের বিরুদ্ধে চূড়ান্ত লড়াইয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা সমাবেশ সফল করতে যাবতীয় প্রস্তুতি নিয়েছি।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিএনপির নেতা মো. শাহজাহান, আমান উল্লাহ আমান, মো. আবদুস সালাম, খায়রুল কবির খোকন প্রমুখ।



আপনার মূল্যবান মতামত দিন:


রিসোর্সফুল পল্টন সিটি (১১ তলা) ৫১-৫১/এ, পুরানা পল্টন, ঢাকা-১০০০।
মোবাইল: ০১৭১১-৯৫০৫৬২, ০১৯১২-১৬৩৮২২
ইমেইল : editordailymail@gmail.com, newsroom.dailymail@gmail.com
সম্পাদক: মো. জেহাদ হোসেন চৌধুরী

রংধনু মিডিয়া লিমিটেড এর একটি প্রতিষ্ঠান।

Developed with by
Top